ঢাকা ০৯:০৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
শেখ হাসিনার ৪৪তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হাতিয়ার এমপি মোহাম্মদ আলীর ছেলে আশিক আলি অমি, অন্যরাও সরে দাঁড়ালেন না। জেলা আওয়ামিলীগের সংবাদ সম্মেলন সার্বজনীন পহেলা বৈশাখ বা পয়েলা বৈশাখ – লেখকঃ  আসসাদুজ্জামান আরমান  (প্রকাশক ও সম্পাদক) মুরগির ওজন বৃদ্ধির জন্য খাওয়ানো হচ্ছে ইটের কণা ডিজিটাল মিটারের অফলাইন এবং অনলাইন সেবাতে বিভ্রান্ত গ্রাহক নোয়াখালীতে মোটরসাইকেল চোর চক্রের ০২ সদস্য গ্রেফতার সহ ০৭ টি চোরাই মোটর সাইকেল উদ্ধার নোয়াখালী শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস উৎযাপন স্বাধীনতা দিবসে বীর শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন নোয়াখালী পৌরসভায় কিশোরগ্যাং এর উৎপাত বাড়ছে নোয়াখালীর সদর উপজেলায় অগ্নিকাণ্ডে এক ব্যক্তি নিহত ও একই পরিবারের তিনজন দগ্ধ

ডিজিটাল মিটারের অফলাইন এবং অনলাইন সেবাতে বিভ্রান্ত গ্রাহক

News Desk
  • আপডেট সময় : ০১:৩৯:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ এপ্রিল ২০২৪ ১৩০ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে দেশের শতভাগ জনগোষ্ঠি বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। বিদ্যুতের সেবাকে সহজ ও হয়রানি মুক্ত করতে ডিজিটাল মিটার চালু হয়েছে। ডিজিটাল মিটারের নামে বাংলাদেশ পল্লি বিদ্যুৎ সমিতি দিচ্ছে ২ ধরনের অফলাইন (২০১৯ সালে বাংলাদেশ পল্লি বিদ্যুৎ এ যুক্ত হয়) এবং অনলাইন মিটার (২০২৪ সালের জানুয়ারী মাসে যুক্ত হয়)।

একজন গ্রাহকের বিদ্যুৎ      বিলের প্রাপ্ত কোড 

একজন গ্রাহকের বিদ্যুতের ইউনিট ক্রয়ের ক্ষেত্রে মোবাইল এস,এম,এস এ কখনো ২০ টি আবার কখনো সেই সংখ্যা দুই শতাধিক পর্যন্ত আসে। অফলাইন মিটারের ক্ষেত্রে উক্ত সংখ্যাগুলো মিটারে ডায়াল করার প্রয়োজন হয়। এছাড়াও অফলাইন মিটারে বিকাশ, রকেট কিংবা ব্যাংকিং মাধ্যম থেকে টাকা পাঠানো হলে সেই টাকা থেকে মিটারের ডিমান্ড চার্জ (Sanction Load*42/kWh Monthly) , ভ্যাট ৫%, Rebate(0.5%),Meter Rent 1P(40/Month) সহ কর্তন করে অবশিষ্ট টাকা মিটারে যোগ হয়। কিন্তু অনলাইন মিটারের ক্ষেত্রে তার উল্টো চিত্র দেখা যায়। অনলাইন  মিটারে বিকাশ , রকেট কিংবা ব্যাংকিং মাধ্যম থেকে টাকা পাঠানো হলে সেটি সরাসরি মিটারে যোগ হয়। পরবর্তীতে সব ধরনের চার্জ ধীরে ধীরে মোট টাকা থেকে কর্তন করা হয়।

নোয়াখালী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকোশলী মোঃ হাবিবুল বাহার  থেকে এই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘বর্তমান প্রিপেইড মিটারের যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে অথবা ইন্টারনেট সংযোগ ব্যঘাত ঘটার কারণে বিল মিটারে সরাসরি যোগ না হলে তা পুনরায় ডায়াল করে মিটারে বিল যোগ করতে হয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘জনগন পুর্বে বৈদ্যুতিক বিল প্রদানের ক্ষেত্রে যেকোনো ব্যাংকিং সেবার সরণাপন্ন হতো কিন্তু বর্তমানে গ্রাহক ঘরে বসে তার নির্দিষ্ট পরিমান বিদ্যুৎ ক্রয় করে ব্যবহার করছে। এতে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হচ্ছে এবং বিদ্যুতের অপচয় ও কমছে বলে জানান তিনি।’

 

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

ডিজিটাল মিটারের অফলাইন এবং অনলাইন সেবাতে বিভ্রান্ত গ্রাহক

আপডেট সময় : ০১:৩৯:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ এপ্রিল ২০২৪

বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে দেশের শতভাগ জনগোষ্ঠি বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। বিদ্যুতের সেবাকে সহজ ও হয়রানি মুক্ত করতে ডিজিটাল মিটার চালু হয়েছে। ডিজিটাল মিটারের নামে বাংলাদেশ পল্লি বিদ্যুৎ সমিতি দিচ্ছে ২ ধরনের অফলাইন (২০১৯ সালে বাংলাদেশ পল্লি বিদ্যুৎ এ যুক্ত হয়) এবং অনলাইন মিটার (২০২৪ সালের জানুয়ারী মাসে যুক্ত হয়)।

একজন গ্রাহকের বিদ্যুৎ      বিলের প্রাপ্ত কোড 

একজন গ্রাহকের বিদ্যুতের ইউনিট ক্রয়ের ক্ষেত্রে মোবাইল এস,এম,এস এ কখনো ২০ টি আবার কখনো সেই সংখ্যা দুই শতাধিক পর্যন্ত আসে। অফলাইন মিটারের ক্ষেত্রে উক্ত সংখ্যাগুলো মিটারে ডায়াল করার প্রয়োজন হয়। এছাড়াও অফলাইন মিটারে বিকাশ, রকেট কিংবা ব্যাংকিং মাধ্যম থেকে টাকা পাঠানো হলে সেই টাকা থেকে মিটারের ডিমান্ড চার্জ (Sanction Load*42/kWh Monthly) , ভ্যাট ৫%, Rebate(0.5%),Meter Rent 1P(40/Month) সহ কর্তন করে অবশিষ্ট টাকা মিটারে যোগ হয়। কিন্তু অনলাইন মিটারের ক্ষেত্রে তার উল্টো চিত্র দেখা যায়। অনলাইন  মিটারে বিকাশ , রকেট কিংবা ব্যাংকিং মাধ্যম থেকে টাকা পাঠানো হলে সেটি সরাসরি মিটারে যোগ হয়। পরবর্তীতে সব ধরনের চার্জ ধীরে ধীরে মোট টাকা থেকে কর্তন করা হয়।

নোয়াখালী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকোশলী মোঃ হাবিবুল বাহার  থেকে এই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘বর্তমান প্রিপেইড মিটারের যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে অথবা ইন্টারনেট সংযোগ ব্যঘাত ঘটার কারণে বিল মিটারে সরাসরি যোগ না হলে তা পুনরায় ডায়াল করে মিটারে বিল যোগ করতে হয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘জনগন পুর্বে বৈদ্যুতিক বিল প্রদানের ক্ষেত্রে যেকোনো ব্যাংকিং সেবার সরণাপন্ন হতো কিন্তু বর্তমানে গ্রাহক ঘরে বসে তার নির্দিষ্ট পরিমান বিদ্যুৎ ক্রয় করে ব্যবহার করছে। এতে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হচ্ছে এবং বিদ্যুতের অপচয় ও কমছে বলে জানান তিনি।’